SEO কি এবং কি কি উপায়ে ওয়েবসাইটের SEO করা হয়।

SEO কি এবং কি কি উপায়ে ওয়েবসাইটের SEO করা হয়।


SEO: 

SEO হলো কিছু নিয়মনীতি, কৌশল বা টেকনিক, যার মাধ্যমে কোনো ওয়েবসাইটের ভিজিটর বাড়ানো হয়ে থাকে এবং বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন যেমনঃ গুগল, বিং, ইয়াহু এর প্রথম পেজ এ র‍্যাঙ্কিং এ হাই পজিশন এ চলে আসে যার ফলে একটি ওয়েবসাইটের ভিজিটর বৃদ্ধি পায় এবং সেই ওয়েবসাইটের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জিত হয়ে থাকে। 

একটি ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিন এর মাধ্যমে উচ্চ র‍্যাঙ্কিং এ রাখতে হলে SEO এর সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। SEO কে সাধারণত দুই ভাগে ভাগ করা হয়। যেমনঃ 

১। On Page SEO এবং 

২। Off Page SEO 


On Page SEO: 

SEO এর অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হলো সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পেজ এ ওয়েবসাইটকে নিয়ে আসা। আর লক্ষ্য অর্জনের জন্য ওয়েবসাইটের কোডিং, মেটাট্যাগ, কী-ওয়ার্ড রিসার্চ, কী-ওয়ার্ড প্লেসমেন্ট, অপ্টিমাইজড কন্টেন্ট, অপ্টিমাইজড ছবি, কীওয়ার্ড ডেনসিটি ইত্যাদি টেকনিক /কৌশল ব্যবহার করে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানোকে On Page SEO বলা হয়। 


Off Page SEO: 

অন্যদিকে ওয়েবসাইটের অভ্যন্তরীণ কোড ছাড়াই ওয়েবসাইটের বাইরের অর্থাৎ অন্য ওয়েবসাইটের লিঙ্ক, সামাজিক মাধ্যমে লিঙ্ক সংযোজন, ফোরাম পোস্টিং, গেস্ট পোস্টিং, সোশ্যাল বুকমার্কিং, ইত্যাদি কৌশল ব্যবহার করে উদ্দেশ্য অর্জন করার প্রক্রিয়াকে Off Page SEO বলা হয়। 


ওয়েবসাইটের SEO করার বিভিন্ন পদ্ধতিঃ 

১। মেটা ট্যাগঃ On Page SEO এর অন্যতম গুরুত্তপূর্ণ একটি বিষয় হলো Meta Tag. ওয়েবসাইটের ভিজিটররা সম্ভাব্য কি কি কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করতে পারে সেগুলো সংগ্রহ করে মেটা ট্যাগ হিসেবে ব্যবহার করতে হবে। 

মেটা ট্যাগের ডেসক্রিপশন এ পেজ এ যা আছে তার সংক্ষিপ্ত কিছু লিখতে হবে, যা সার্চ ইঞ্জিন কে উক্ত পেজ সম্পর্কে ধারণা দিবে। মেটা বর্ণনাকে গুগল এই পেজ এর কনটেন্ট হিসেবে বিবেচনা করে। 

মেটা বর্ণনার সাথে পেজের কনটেন্ট মিলে গেলে তা গুগল রেজাল্টে দেখাতে পারে। ইউজার যেসব কীওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করছে তা যদি মেটা বর্ণনার সাথে মিলে যায় তাহলে গুগল তা বোল্ড করে দেখাবে। 

২। SEO লিঙ্কের গঠনঃ URL তথা ওয়েবসাইটের ঠিকানা/ডোমেইন নাম ওয়েবসাইটের কাজের সাথে মিল রেখে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

এটা সহজ ও বোধগম্য হলে সার্চ ইঞ্জিন ও ইউজার উভয়ে সহজে বুঝতে পারবে। URL এ আইডি বা অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার না করা উচিত। URL এ অতিরিক্ত শব্দের ব্যবহার পরিহার করতে হবে। 

৩। SEO সাইট ন্যাভিগেশনঃ হোম পেজভিত্তিক ন্যাভিগেশন তৈরি করতে হবে। ইউজার যেন হোম পেজ থেকে সব পেজে যেতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। 

Breadcrumb পদ্ধতি ব্যবহার করা ভালো। ইউজার যদি URL এর কোনো নির্দিষ্ট অংশ মুছে দিয়ে উপরের কোন ডিরেক্টরি বা পেজে যেতে চায় তাহলে যেন যেতে পারে। 

সাইটের ন্যাভিগেশনের জন্য অর্থাৎ এক পেজ হতে অন্য পেজে যাওয়ার  জন্য টেক্সট লিঙ্ক ব্যবহার করতে হবে, তাতে সার্চ ইঞ্জিন ওয়েবসাইটটিকে ভালোভাবে বুঝতে পারবে। 

ন্যাভিগেশনে জাভাস্ক্রিপ্ট, ফ্ল্যাশ বা ড্রপডাউন মেনু ব্যবহার করলে সার্চ ইঞ্জিনের বুঝতে কঠিন হয়। 

৪। SEO অ্যাংকর ট্যাগঃ  অ্যাংকর টেক্সট হচ্ছে একটি ক্লিকযোগ্য টেক্সট, যেটা ইউজার দেখে এবং ক্লিক করে নতুন পেজে যেতে পারে। 

যেমনঃ <a href="index.html">Alimul Nishat</a>

এই অ্যাংকর টেক্সট এমনভাবে দেয়া উচিত, যা দেখে ইউজার এবং সার্চ ইঞ্জিন যেন বুঝতে পারে যে এই লিঙ্কে ক্লিক করে যে পেজে নিয়ে যাবে সেখানে কি ধরনের লেখা/আর্টিকেল/কনটেন্ট আছে। 

৫। SEO ছবি বা ইমেজঃ ওয়েবসাইটে ছবি বা ইমেজ এর ব্যবহারের বিকল্প নেই। তবে ছবিতে Alt অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করে বর্ণনা দিতে হবে। 

কোনো সময় ছবি পাওয়া না গেলে এ Alt টেক্সট অ্যাংকর টেক্সট এর কাজ করে। এতে সার্চ ইঞ্জিনে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। 

৬। SEO হেডিংঃ HTML এ <h1>, <h2>, ....., <h6> ছয়টি হেডিং ট্যাগ আছে। হেডিং ট্যাগের মধ্যে আর্টিকেল ও কনটেন্টসমূহ রাখলে সার্চ ইঞ্জিনে সুবিধা পাওয়া যায়। 

কোনো কনটেন্ট এ যদি একাধিক প্যারাগ্রাফে থাকে তাহলে প্রত্যেক প্যারাগ্রাফকে আলাদা হেডিং ট্যাগে রাখলে SEO তে ভালো ফল পাওয়া যায়। 

৭। robots.txt ফাইল তৈরিঃ "robots.txt" ফাইল এমন একটি ফাইল, যেটা সার্চ ইঞ্জিনকে বলে দেয় সার্চ ইঞ্জিন একটি সাইটের কোন কোন পেজ Crawl করবে এবং কোন কোন পেজ Crawl করবে না। 

এই robots.txt ফাইলটি রুট ফোল্ডারে থাকে। যদি এমনটি হয় একটি ওয়েবসাইটের সবগুলো পেজ সম্পন্ন হয়নি, তাহলে robots.txt ফাইলে তা উল্লেখ করলে সার্চ ইঞ্জিন সে পেজগুলোকে Crawl করবে না। 

৮। সার্চ ইঞ্জিনে সাইটের URL সাবমিট করাঃ গুগলের সাইটে ঢুকে http://www.google.com/addurl ঠিকানায় গিয়ে সাইটের URL এড করলে গুগল সাইটটিকে Crawl করবে। 

৯। গুগল ওয়েবমাস্টার টুলের ব্যবহারঃ একজন ওয়েবমাস্টারের গুগল ওয়েবমাস্টার টুলের ব্যবহার জানা আবশ্যক। একজানে যে কোনো ওয়েবসাইট বিনামূল্যে যুক্ত করা যায়। 

গুগলে ওয়েবসাইটটি কিভাবে দেখাবে গুগল ওয়েবমাস্টার গুলে তার বিস্তারিত বর্ণনা দেয়া থাকে। 

১০। সাইট ম্যাপ তৈরি করাঃ গুগল থেকে এক্সএমএল সাইট ম্যাপ সাবমিট করার জন্য তারা পরামর্শ দেয় এতে গুগল সাইটটি সম্পর্কে ধারণা পায়। 

Post a Comment

Previous Post Next Post